.“...ঝড়ের মুকুট পরে ত্রিশূণ্যে দাঁড়িয়ে আছে, দেখো স্বাধীন দেশের এক পরাধীন কবি,---তার পায়ের তলায় নেই মাটি হাতে কিছু প্রত্ন শষ্য, নাভিমূলে মহাবোধী অরণ্যের বীজ... তাকে একটু মাটি দাও, হে স্বদেশ, হে মানুষ, হে ন্যাস্ত –শাসন!— সামান্য মাটির ছোঁয়া পেলে তারও হাতে ধরা দিত অনন্ত সময়; হেমশষ্যের প্রাচীর ছুঁয়ে জ্বলে উঠত নভোনীল ফুলের মশাল!”~~ কবি ঊর্ধ্বেন্দু দাশ ~০~

বৃহস্পতিবার, ৮ মার্চ, ২০১৮

সুকোমল

হ্যালো সুকোমল, শুনতে পাচ্ছো 

কাল রাত্রে  মন্ডপেতে তৈরি থেকো যেন ।

আমরা ভীষণ পাংচুয়েল , এক কথার লোক 

পুরোহিতকে বলো প্রথম লগ্নেই বিয়ে

দেখবে সময় মত পৌঁছে যাব ক্ষণ।

 টাকার জন্য শুধু শুধু ভয় পাচ্ছ কেন? 

খরচ করবে নিজের খুশি  মতো 

কিছু যদি চাই, সংকোচের কি ছাই, 

বলবে আমাদের । ফোনে বলে দিও

আমরা আছি কিসের জন্য ? 

আর হ্যাঁ , একটু নজর দিও, 

যাতে সম্মানটি থাকে।

সুকোমল, তোমার ভয় করছে নাতো

আজ একবার পার্লারে যেতে পারতে ।

দাঁড়িগুলো ছেটে একটু ওয়াশ করতে মুখ

বুঝি না বাবা তোমার এত কিসের ইয়ে

কাল তোমার ছাদনা তলায় বিয়ে 

যদি তোমায় দেখতে খারাপ লাগে ?

লোকে আমাদের  কি বলবে বলো ?

শুনতে তোমার খারাপ লাগবে নাতো ?

আর হ্যাঁ, ওই চিকন পাঞ্জাবিটা , 

ওই যে মঙ্গলাচরণে দিলাম 

ওইটাই কাল পরতে যেও না যেনো ,

সুটকেসেতে অন্যখানি রাখা

আমি নিজে গিয়ে কিনেছি ওইখানা ।

সুকোমল, ভাবছো এ কেমনতর বিয়ে

বরের বাড়ি কনে আসছি, গাড়ি সওয়ার হয়ে ।

নতুন যুগ আমাদের,  নতুন নতুন কথা

পাল্টে দেব নিয়ম নীতি ভাবনাকে 

আনবোই দেখো এই সমাজে 

নতুন দিনের বার্তা ।

কি ভাবছো বলতো ? 

মেয়েরা কি সেই আগের মতোই আছে ?

পৃথিবীটা আজ কোথায় দাঁড়িয়ে জানো ?

আমরা আজ আর সেই মেয়েটি নই 

দুর্বল আর  পরগাছা । সবসময়ই ভয় ।

এদিকে  তোমরা সব কর্তাব্যক্তিরা,

না চাইতেও  স্থির করবে

আমাদের সুখ , দুঃখ, জীবন 

ঐ দিনটি আর নেই সুকোমল ।

হাতের মুঠোয় মুঠোফোনে দেখো

তোমার হাতে বিশাল পৃথ্বী ধরা

যা চাই শুধু বলতে হবে, 

বাকি সবটাই ভানুমতীর খেলা ।

এখন মেয়েরা, যুদ্ধ করে,

 বিমান চালায়,  রিসার্চ করে 

বিশ্ব এখন তাদের ঘর ; বিশ্বায়নের পরে ।

সেই দিনটি নেই সুকোমল, সেসব দিন গেছে 

আগের মত দল বেঁধে সব বৌ আনতে যাবে 

যাবার কালে প্রণাম করে বলবে মাকে, "আসি

তোমার জন্য যাচ্ছি মাগো আনতে একটা দাসী।"

সেই দিনটা গেছে সুকোমল, এখন আর নেই 

এবার আমরা যাবো আনতে তোমায়, তোমাদেরই বাড়ি।

বাজবে বাঁশি, বাজবে শাঁখ সঙ্গে বাজবে ঢোলক

তোমরা আসবে শ্বশুর বাড়ি, যে যা বলে বলুক ।

সুকোমল,  ভয়ের কিছু নেই 

মোরা একবিংশ শতাব্দীর নারী,

আমাদের দাবী সম অধিকার ।

ঘরে, বাইরে, সমাজের প্রতিস্তরে 

তোমাদের চিন্তায়, মননে , কর্মে, আচরণে 

শুধু ভাষণ সম্ভাষণে নয়

জীবনের সর্বস্তরে সর্বক্ষেত্রে 

চাই সমান অধিকার ।

আমরা প্রকৃতির শ্রেষ্ঠ জীব,  মানব মানবী 

এসো চন্দ্র সূর্য সাক্ষী রেখে করি অঙ্গীকার

আগামী প্রজন্মের জন্য গড়ি নতুন পৃথিবী 

যেখানে ভেদাভেদ নেই নারী পুরুষে,

পুনরায় প্রতিষ্ঠা হোক সম অধিকর ।

 




একটি মন্তব্য পোস্ট করুন