.“...ঝড়ের মুকুট পরে ত্রিশূণ্যে দাঁড়িয়ে আছে, দেখো স্বাধীন দেশের এক পরাধীন কবি,---তার পায়ের তলায় নেই মাটি হাতে কিছু প্রত্ন শষ্য, নাভিমূলে মহাবোধী অরণ্যের বীজ... তাকে একটু মাটি দাও, হে স্বদেশ, হে মানুষ, হে ন্যাস্ত –শাসন!— সামান্য মাটির ছোঁয়া পেলে তারও হাতে ধরা দিত অনন্ত সময়; হেমশষ্যের প্রাচীর ছুঁয়ে জ্বলে উঠত নভোনীল ফুলের মশাল!”~~ কবি ঊর্ধ্বেন্দু দাশ ~০~

শুক্রবার, ২ মার্চ, ২০১৮

চাঁদের অসুখ হলে


মূল অসমিয়া : রোশোনারা বেগম
অনুবাদ:পার্থ সারথি দত্ত
(C)Image:ছবি












চাঁদের অসুখ হলে
কুয়াশা রঙিন চুলগুলো ছড়িয়ে
আকুল হয়ে ওঠে আকাশ

দু:খে কালচে হয় তার জোছনা শরীর
দুচোখে অশ্রু ঝরে...
নদীর জলে সেদিন নাচেনা চাঁদনি,
পাখনা মেলে মাছগুলো
শব্দ করে না জলে
অরণ্যটি বাকরুদ্ধ হয়ে পড়ে ৷
আড্ডাবাজ তারাগুলো হারিয়ে যায়
নীরব নিঝুম অরণ্যের আঁধার গহ্বরে
চোখের জল কেড়ে বয়ে যাওয়া
নদীর ঢেউগুলো
দুপাড়ের আঁধারে মাথা আছড়ে কাঁদে
     
চাঁদের অসুখ হলে
জেলেহীন একাকী নৌকাখানা
জলের দিকে চেয়ে মনের দু:খে বসে থাকে তীরে ৷
                        ~~~০০০~~~




একটি মন্তব্য পোস্ট করুন