“...ঝড়ের মুকুট পরে ত্রিশূণ্যে দাঁড়িয়ে আছে, দেখো ,স্বাধীন দেশের এক পরাধীন কবি,---তার পায়ের তলায় নেই মাটি হাতে কিছু প্রত্ন শষ্য, নাভিমূলে মহাবোধী অরণ্যের বীজ...তাকে একটু মাটি দাও, হে স্বদেশ, হে মানুষ, হে ন্যাস্ত –শাসন!—সামান্য মাটির ছোঁয়া পেলে তারও হাতে ধরা দিত অনন্ত সময়; হেমশষ্যের প্রাচীর ছুঁয়ে জ্বলে উঠত নভোনীল ফুলের মশাল!” ০কবি ঊর্ধ্বেন্দু দাশ ০

রবিবার, ১০ আগস্ট, ২০১৪

বাইশে শ্রাবণের কবিতা

দৈনিক যুগশঙ্খে প্রকাশিত আজ (১০ আগস্ট,১৪)





















খন আমি রবীন্দ্রনাথ পড়ি,
মাঝে মাঝেই পড়ি
প্রায় ই পড়ি
তখন চারপাশে মোমের আলোর মত
নরম আঁধার ঘনায়
আর ক্রমশঃ ডুবে যেতে থাকি
গভীর থেকে গভীরতর মায়ায়
সেই প্রায়ান্ধকার থেকে
আলোময় তুমি উঠে এসে
হাত বাড়াও' রঞ্জন' হয়ে
আর আমি 'নন্দিনী' হয়ে
ছুঁয়ে ছুঁয়ে যেতে চাই তোমায়
অথবা 'লাবণ্য' হয়ে
'অমিত' ভালবাসায়
ভরে দিতে থাকি তোমার হৃদয়
যে হৃদয়ে জাগে একটিই মুখ
"ভালবাসা" অথবা "রবি ঠাকুর"
একটি মন্তব্য পোস্ট করুন