.“...ঝড়ের মুকুট পরে ত্রিশূণ্যে দাঁড়িয়ে আছে, দেখো স্বাধীন দেশের এক পরাধীন কবি,---তার পায়ের তলায় নেই মাটি হাতে কিছু প্রত্ন শষ্য, নাভিমূলে মহাবোধী অরণ্যের বীজ... তাকে একটু মাটি দাও, হে স্বদেশ, হে মানুষ, হে ন্যাস্ত –শাসন!— সামান্য মাটির ছোঁয়া পেলে তারও হাতে ধরা দিত অনন্ত সময়; হেমশষ্যের প্রাচীর ছুঁয়ে জ্বলে উঠত নভোনীল ফুলের মশাল!”~~ কবি ঊর্ধ্বেন্দু দাশ ~০~

রবিবার, ১১ মার্চ, ২০১৮

বিস্ময়





















।। সিক্তা বিশ্বাস।।

ছি আনন্দে নিত্য নতুন গন্ধে •••জীবন মানেই নিত্য বাহার ! নিত্যানন্দ ! তাই কি ! হঠাৎ হুজুগে খেয়ালে তদন্ত ••••
শুধোই জীবনকে ,
---তুমিই কি সব আনন্দের উৎস !?
----আমায় চলতে হয় মনের স্রোতে ! জীবনের উত্তর , বুঝলে বৎস !
মনকে বলি ---বলো তুমিই তাহলে সর্বমূল !?
মন বলে ---আমি কি করে হই মূল !সেই তো আমি বিবেকের  বিচারাধীন ! 
স্বাধীনতা কই আমার ! আমিও পরাধীন !
অবাক হয়ে শুধোই বিবেককে , তুমিই কি মনের নির্ধারক !?
বিবেক  বলে-- না গো ! আমায় চলতে হয় রয়ে সয়ে ! পরিস্থিতিই যে বোঝায় সব ! তার সাথে খাপ খাইয়ে !
বলি তারে , পরিস্থিতি ! সে তো বাহ্যিক !
ঠিক ! বললে বিবেক , অভ্যন্তরীণ যে আবার সচল মন !
অবাক হই ! মনের ও আবার প্রকার ভাগ !! এ কেমন বিভাগ !!
এবারে শুধোই সচল-মনকে , ---অচলমন যে হঠাৎ জাগে ! তুমিতো চলো তারও আগে,তাহলে বলো , তুমিই সব !
সে বলে ---মোটেও নই ! সবই গুজব !নিঃশ্বাসই আমায় চালায় ! রয়েছি আমি তারই ঝোলায় !
এবারে প্রশ্ন নিঃশ্বাস কে --- তুমিই তাহলে জীবনের মূল !?
নিঃশ্বাস বলে -- নয়কো সত্য এক চুল ! কি আমার নিশ্চয়তা ! মূল হতে বয়েই  গেছে ! চাপের তোড়ে কখন যে ছেড়ে যাই ! তার কি কোনো ঠিক আছে ! নেই যে ইয়ত্তা !
মন তোলপাড় করা প্রশ্নের ঝড় ওঠে •••• একি !জীবন যে দেখি শুধুই এক কাগজের নৌকো !গতিপথে কখন যে ভিজে  কোন অতল অদৃশ্যলোকে তলিয়ে যায় ••• থাকেনা তার অস্তিত্ব ! হায় !  একি হেয়ালি ! এ কেমন জীবন সত্য ! বিস্ময় প্রদানই কি তাঁর চির মাহাত্ম !!!
     *************
#ঝোড়োমেঘ#
  11 -3 -18 ইং ,
  #শিলং#






একটি মন্তব্য পোস্ট করুন