.“...ঝড়ের মুকুট পরে ত্রিশূণ্যে দাঁড়িয়ে আছে, দেখো স্বাধীন দেশের এক পরাধীন কবি,---তার পায়ের তলায় নেই মাটি হাতে কিছু প্রত্ন শষ্য, নাভিমূলে মহাবোধী অরণ্যের বীজ... তাকে একটু মাটি দাও, হে স্বদেশ, হে মানুষ, হে ন্যাস্ত –শাসন!— সামান্য মাটির ছোঁয়া পেলে তারও হাতে ধরা দিত অনন্ত সময়; হেমশষ্যের প্রাচীর ছুঁয়ে জ্বলে উঠত নভোনীল ফুলের মশাল!”~~ কবি ঊর্ধ্বেন্দু দাশ ~০~

সোমবার, ৮ মে, ২০১৭

বাস্তুবিদ্যা



 















 অর্পিতা আচার্য 


বেশ তবে তাই হোক -
অগ্নি নৈঋত ঈশান ও বায়ুকোণ জুড়ে শুরু হোক বাস্তু পূজা
সারি সারি বাস্তু বান্ধব উত্তরমুখী শৌচালয়ে
ছেয়ে যাক সংস্কৃত স্বদেশ !
ত্রিকোণ মন্ডুকে সঞ্চালিত হোক
পুণ্যশ্লোক বীর্যবান বাস্তুপুরুষের
অমোঘ শঙ্খধ্বনি,সন্ধ্যায় -সকালে...
পঞ্চগব্য উপচারে শুদ্ধ হোক
বিপরীত শক্তি যত, পীঠ -উপপীঠে 
প্রতিটি যন্ত্রের গায়ে পুষ্প মাল্য, বিল্বপত্র
হোম, যজ্ঞ, ধূপ, মোম
সিন্দুরের অলক্তসঞ্চার
এঁকে দিক, সম্মোহিত প্রকৌশলী দল
এ দেশের ভবিষ্যত, এ দেশের ইমারত
এ দেশের সমস্ত মোকাম -
অট্টালিকা, দালানের প্রতিটি প্রকোষ্ঠে
জয়ধ্বনি দিয়ে যাক
ছদ্মবিজ্ঞান !!



একটি মন্তব্য পোস্ট করুন