.“...ঝড়ের মুকুট পরে ত্রিশূণ্যে দাঁড়িয়ে আছে, দেখো স্বাধীন দেশের এক পরাধীন কবি,---তার পায়ের তলায় নেই মাটি হাতে কিছু প্রত্ন শষ্য, নাভিমূলে মহাবোধী অরণ্যের বীজ... তাকে একটু মাটি দাও, হে স্বদেশ, হে মানুষ, হে ন্যাস্ত –শাসন!— সামান্য মাটির ছোঁয়া পেলে তারও হাতে ধরা দিত অনন্ত সময়; হেমশষ্যের প্রাচীর ছুঁয়ে জ্বলে উঠত নভোনীল ফুলের মশাল!”~~ কবি ঊর্ধ্বেন্দু দাশ ~০~

রবিবার, ১৪ মে, ২০১৭

মায়ের কথা


।। সুরজিৎ মণ্ডল ।। 

















ন্ম দিয়েছে আমায় চোখ ভরা জলে,
আশ্রয় দিয়েছে মা আঞ্চলের তলে।
গড়ে তুলেছ আমায় তিল তিল করে,
মৃন্ময়ী মায়ের মূর্তি যেভাবেতে গড়ে।
স্নানের পর, খাইয়ে দিলে আসতো চোখ জুড়িয়া,
মা তো আমায় দিলো তার জীবন উৎসরিয়া।
মনে আছে, আমার মনে আছে সে কথা
আমার সকল দুষ্টামিতেও মায়ের নীরবতা।
একদিন জিদ ধরেছি চাই দশটি টাকা,
সবটি দিল যা ছিল তার অনেক দিনের রাখা।
কি ভুল সেদিন করেছিলাম ভাবে মরি আমি,
সেই টাকাতো মায়ের ছিলো জীবনেরও দামী।
তারে যদি দেই আমি হৃদয়ের কৌপিন,
তবু  কি ফুরাতে পারি সে দশ টাকার ঋণ?
মার কাছে থাকতে চাই জীবনের ঋণী,
লক্ষ জন্ম পরেও যেন মা কে আমি চিনি।
বার বার জন্ম নেব তারে কিছু দিতে,
মায়ের সন্তান হয়ে আসবো পৃথিবীতে।
স্নেহের টান মার, অকৃত্রিম ভালোবাসা,
তারই চরণতলে বাঁধতে চাই বাসা।



একটি মন্তব্য পোস্ট করুন