“...ঝড়ের মুকুট পরে ত্রিশূণ্যে দাঁড়িয়ে আছে, দেখো ,স্বাধীন দেশের এক পরাধীন কবি,---তার পায়ের তলায় নেই মাটি হাতে কিছু প্রত্ন শষ্য, নাভিমূলে মহাবোধী অরণ্যের বীজ...তাকে একটু মাটি দাও, হে স্বদেশ, হে মানুষ, হে ন্যাস্ত –শাসন!—সামান্য মাটির ছোঁয়া পেলে তারও হাতে ধরা দিত অনন্ত সময়; হেমশষ্যের প্রাচীর ছুঁয়ে জ্বলে উঠত নভোনীল ফুলের মশাল!” ০কবি ঊর্ধ্বেন্দু দাশ ০

মঙ্গলবার, ৬ নভেম্বর, ২০১৮

লাভ জেহাদ

কেউ বলে ভাই লাভ জেহাদ 

কেউবা বলে প্রেমের ফাঁদ

আমি বলি সব বোকার হদ্দ  

সবটাইতো মনের সাধ।

সাধ বলাটা ঠিক হবে না 

ওতেই তো সব মন মজানো

মনমাঝি হায় মন খুঁজে যায় 

থাক না কাঁটা পথ ছড়ানো ।

মনে মনে মিলন মেলা 

তাতেই তোদের জাতের জ্বালা 

মরা দেহে জাত খুঁজে যাস 

সবশেষে ওই মাটির ঢেলা।

জানিস তো সব মনের ব্যাপার 

মনের কোন জাত আছে কি

পৈতে পরা, লম্বা দাঁড়ি 

সুন্নত করা,  তিলকধারী।

এই যে ওরা ভালভাসে

বাঁধছে  ঘর অনায়াসে  

একে অন্যে অগাধ ভরসায়;

তোর কি রে, আমার কি রে

জীবনটাতো ওদের নাকি? 

বাঁচুক না হয় দুটি প্রাণ 

আনন্দেতে বসন্ত বরষায়।

জাত বিচারে ভালবাসা 

টাকার টানে প্রেমে ভাসা

ভালবাসা কোথায় সেথায় ?

সবটাই তো লিপ্সা ঠাসা ।

কি ক্ষতি হয়, বাঁধলে নোঙর, মিলন সেতুটায়।

ধর্ম সেতো মনের ব্যাপার 

মানো যদি স্বর্গ বিহার 

যে মানে না, সেও তারই

না মানাটা  নিজের বিচার ।

সাহস চাই যে তোদের বুকে

ভালবাসবি ওদের মেয়েকে 

ওই মেয়েরাও তেমনি ভিতু

তাইতো এমন আওয়াজ ওঠে।

আয় না সবাই হাত বাড়াই

মৈত্রীর বাণী খুব ছড়াই

সব পথেরই শেষ কি জানিস? 

থাক না সেটা না বলাই ।










একটি মন্তব্য পোস্ট করুন