“...ঝড়ের মুকুট পরে ত্রিশূণ্যে দাঁড়িয়ে আছে, দেখো ,স্বাধীন দেশের এক পরাধীন কবি,---তার পায়ের তলায় নেই মাটি হাতে কিছু প্রত্ন শষ্য, নাভিমূলে মহাবোধী অরণ্যের বীজ...তাকে একটু মাটি দাও, হে স্বদেশ, হে মানুষ, হে ন্যাস্ত –শাসন!—সামান্য মাটির ছোঁয়া পেলে তারও হাতে ধরা দিত অনন্ত সময়; হেমশষ্যের প্রাচীর ছুঁয়ে জ্বলে উঠত নভোনীল ফুলের মশাল!” ০কবি ঊর্ধ্বেন্দু দাশ ০

শুক্রবার, ২ নভেম্বর, ২০১৮

বিশ্বটাকে বাঁচাও
    ।।    এম রিয়াজুল আজহার লস্কর ।।

কমছে আস্থা বাড়ছে ভীতি খাঁটি লোকের অভাব।
চতুর্দিকেই দেখছি এখন সন্ত্রাসীদের প্রভাব।।
বিশ্ব মানুষ জাগতে হবে বিশ্বটাকে বাঁচাও।
সন্ত্রাসীদের ঠাঁই দিওনা লাঠির চোটে নাচাও
বিশ্বটাকে বাঁচাও।।

সন্ত্রাসীদের ধরো বাঁধো লাথি মারো মুখে।
মানবতার আলোয় থাকি স্বপ্নে ভাসি সুখে।।
সন্ত্রাসীদের ধরে বেঁধে করতে পারো যা চাও।
হত্যা হরণ করছে ওদের লাথির চোটে নাচাও
বিশ্বটাকে বাঁচাও।।

আমরা যখন একই জাতি বিভেদ আনে কিসে ?
বিশ্বটাকে ভরছে কেবল সাম্প্রদায়িক বিষে।
সর্বজাতির মিলন মহান  সবাই মিলে তা চাও।
শান্তি সুখটি কাড়ছে ওদের চড়ের চোটে নাচাও
বিশ্বটাকে বাঁচাও।।

গড়বো সবাই মহান মানুষ নিজের ছেলে কন্যা।
বিশ্বজুড়ে আনবো খুশি আনবো আলোর বন্যা।।
সবাই দেখো সমান চোখে, পিতা এবং মা চাও।
সমাজদ্রোহী সবটি ধরে খাঁচার মধ্যে নাচাও
বিশ্বটাকে বাঁচাও।।
@
" শব্দ তরঙ্গ ",  পৃষ্ঠা নং ৩৩
( কপিরাইট সংরক্ষিত )
একটি মন্তব্য পোস্ট করুন