.“...ঝড়ের মুকুট পরে ত্রিশূণ্যে দাঁড়িয়ে আছে, দেখো স্বাধীন দেশের এক পরাধীন কবি,---তার পায়ের তলায় নেই মাটি হাতে কিছু প্রত্ন শষ্য, নাভিমূলে মহাবোধী অরণ্যের বীজ... তাকে একটু মাটি দাও, হে স্বদেশ, হে মানুষ, হে ন্যাস্ত –শাসন!— সামান্য মাটির ছোঁয়া পেলে তারও হাতে ধরা দিত অনন্ত সময়; হেমশষ্যের প্রাচীর ছুঁয়ে জ্বলে উঠত নভোনীল ফুলের মশাল!”~~ কবি ঊর্ধ্বেন্দু দাশ ~০~

বৃহস্পতিবার, ১৫ জুন, ২০১৭

লুইতের মাটি-জল

।।  রফিক উদ্দিন লস্কর  ।।

 
(C)Image:ছবি

 












ব শির তোমার নামে, আর যত ধুলার অহংকার,
ধুয়ে মুছে দাও যত অবজ্ঞা, কিছু নেই আশংকার।
দেখে উদাস মন কেঁপে ভাসে, আকাশ বিম্ব জলে ;
ঘোলাট জলে চিত্ত- রোষে ঘূর্ণিপাক খাও বিফলে
তুমি নন্দিত জীবনানন্দে, শুধু কেঁদে মরি গ্লানিতে !
ব্রহ্মপুত্র, ব্রহ্মরূপী জীবনদর্শন দেখি তব পানিতে।
মলিন সত্তা ডিঙোতে চায়, তোমার সব অন্ধ গলি ;
কুল ভেঙে মিশে যাও নিজের মাঝে, ব্যথা সব দলি।
গর্জিত চিত্তে, তবুও তুমি বীজ পুঁতে দাও দুই ধারে ;
আজ এনে মিলন মেলায়, আপন করেছো সবারে।
নন্দিত করেছো সবার জীবন, ভেদাভেদ নেই আর,
লুইতের মাটি-জলে মিলন হলো,ধন্য জীবন সবার।
পারাপারে আজ নেইকো বিঘ্ন, যদিও তব রুদ্র রূপ,
মমতার ডোরে আগলে রেখে, হয়ে গেছো নিশ্চুপ!
হাজার আত্মার মিলন সুত তোমাতেই টেনে নিলে,
মানুষ মানুষের জন্য, যা তুমি নীরবে শিখিয়ে দিলে।
                      ---------------------
১৫/০৬/২০১৭ইং
ফাঁসিবাজার, গুয়াহাটি (আসাম)



একটি মন্তব্য পোস্ট করুন