.“...ঝড়ের মুকুট পরে ত্রিশূণ্যে দাঁড়িয়ে আছে, দেখো স্বাধীন দেশের এক পরাধীন কবি,---তার পায়ের তলায় নেই মাটি হাতে কিছু প্রত্ন শষ্য, নাভিমূলে মহাবোধী অরণ্যের বীজ... তাকে একটু মাটি দাও, হে স্বদেশ, হে মানুষ, হে ন্যাস্ত –শাসন!— সামান্য মাটির ছোঁয়া পেলে তারও হাতে ধরা দিত অনন্ত সময়; হেমশষ্যের প্রাচীর ছুঁয়ে জ্বলে উঠত নভোনীল ফুলের মশাল!”~~ কবি ঊর্ধ্বেন্দু দাশ ~০~

বুধবার, ৫ অক্টোবর, ২০১৬

কাদাজলে প্রার্থনা গড়ায়


 ।। শিবানী দে।।














খন মানতকাল, দেবতার দোর ধরে চলা,
অজস্র প্রার্থনা ওড়ে, রূপ জয় যশ শত্রুনাশ।
প্রার্থনায় কামনায় কালো হয় নির্মল আকাশ ।
অক্ষম বিলাস সাথে সাজানো নৈবেদ্য থালা থালা ।

কোন রূপ কারে শোভে, কোন জয় চিরস্থায়ী জিত,
কোন যশ অক্ষয়িত, কত ধনে কার তৃপ্তি হয়,
কোন শত্রু কোথা থাকে, কে বা শত্রু কিসে চেনা যায়,
দ্বিধা দ্বন্দ্ব থাকে মনে, সব অগোচর অজানিত ।

চাওয়াপাওয়া সব তাই বুঝি ভুলভাল হয়ে যায়,
হৃদয় ওঠেনা ফুটে, জোর করে খোলা পদ্মকুঁড়ি---
রং-রাংচার উপাদানে বরাভয় মূর্তিখানি গড়ি
চারদিন পুজো শেষে কাদাজলে প্রার্থনা গড়ায় ।



একটি মন্তব্য পোস্ট করুন