“...ঝড়ের মুকুট পরে ত্রিশূণ্যে দাঁড়িয়ে আছে, দেখো ,স্বাধীন দেশের এক পরাধীন কবি,---তার পায়ের তলায় নেই মাটি হাতে কিছু প্রত্ন শষ্য, নাভিমূলে মহাবোধী অরণ্যের বীজ...তাকে একটু মাটি দাও, হে স্বদেশ, হে মানুষ, হে ন্যাস্ত –শাসন!—সামান্য মাটির ছোঁয়া পেলে তারও হাতে ধরা দিত অনন্ত সময়; হেমশষ্যের প্রাচীর ছুঁয়ে জ্বলে উঠত নভোনীল ফুলের মশাল!” ০কবি ঊর্ধ্বেন্দু দাশ ০

বুধবার, ৯ মে, ২০১৮

বন্ধ্যামাটি মানুষ

।। অভীক কুমার দে ।।

(C)Image:ছবি














১.
হামাগুড়ির বয়সেই মানসিক উষ্ণবীর্য
শান দিতে পারো বিবেককাটা ছুরি।
২.
দু'টো ফানুস উড়িয়ে তারা হয়ে গেলে ?
তারাও খসে, তুমি তো বন্ধ্যামাটি মানুষ,
দুয়েক লিটার তেলের ফানুস।
তাও ঠিক উঠতে পারো না, উড়তে জানো না,
পুড়ে পুড়ে ঝরতে দেখি কারো খড়ের চালে।
৩.
ধূর্ত কবির শরীরে বিষলবণ বেশি থাকে।
ক্ষতস্থান দেখে জড়িয়ে...
মায়াকান্নায় গলা ঝাড়ে,
জ্বলতে থাকে আর গলতে থাকে পারিবারিক গান।


একটি মন্তব্য পোস্ট করুন