“...ঝড়ের মুকুট পরে ত্রিশূণ্যে দাঁড়িয়ে আছে, দেখো ,স্বাধীন দেশের এক পরাধীন কবি,---তার পায়ের তলায় নেই মাটি হাতে কিছু প্রত্ন শষ্য, নাভিমূলে মহাবোধী অরণ্যের বীজ...তাকে একটু মাটি দাও, হে স্বদেশ, হে মানুষ, হে ন্যাস্ত –শাসন!—সামান্য মাটির ছোঁয়া পেলে তারও হাতে ধরা দিত অনন্ত সময়; হেমশষ্যের প্রাচীর ছুঁয়ে জ্বলে উঠত নভোনীল ফুলের মশাল!” ০কবি ঊর্ধ্বেন্দু দাশ ০

শনিবার, ৫ মে, ২০১৮

ছবি

।। অভীক কুমার দে ।।

Add caption










কাশের গায়ে তুলোমেঘ জমতে দেখে
মনের মতো ছবি আঁকছিল চোখ,
মেয়েমানুষের ছবি।
কেউ বলে উঠলো--
মেয়ে মানুষ কেন ?
অন্য কিছুও তো আঁকতে পারতিস !
মনের চিত্রকর তখনও বাঁকা চুল আঁকছে
হাতের বাজুতেও দুটো কড়া বাকি...
শেষ টানের আগেই
কোটাঘর থেকে তুলোমেঘে সান্ধ্যছায়া,
ভেতর ছবিও ঘোলা হতে হতে অচেনা,
দু'ফোঁটা জল গড়িয়ে পড়তে দেখেছে চোখ।
তারপর বহুদূর নীল কালো হয়ে গেছে,
আকাশে তারাদের মিছিল আর চাঁদের মুচকি হাসি !


একটি মন্তব্য পোস্ট করুন