.“...ঝড়ের মুকুট পরে ত্রিশূণ্যে দাঁড়িয়ে আছে, দেখো স্বাধীন দেশের এক পরাধীন কবি,---তার পায়ের তলায় নেই মাটি হাতে কিছু প্রত্ন শষ্য, নাভিমূলে মহাবোধী অরণ্যের বীজ... তাকে একটু মাটি দাও, হে স্বদেশ, হে মানুষ, হে ন্যাস্ত –শাসন!— সামান্য মাটির ছোঁয়া পেলে তারও হাতে ধরা দিত অনন্ত সময়; হেমশষ্যের প্রাচীর ছুঁয়ে জ্বলে উঠত নভোনীল ফুলের মশাল!”~~ কবি ঊর্ধ্বেন্দু দাশ ~০~

মঙ্গলবার, ৫ জুন, ২০১৮

ফ্যাশন হাউস

।। অভীক কুমার দে ।।

জানি, মনের হদিস পাওয়া সহজ নয়,
তবু অ আ ক খ গুলো মিলেমিশে যখন লিখিত
শব্দ, জায়গা খুঁজে প্রেমিক হয়ে উঠি।

আকারে প্রকারে কমা কোলন ড্যাশ চেনে জীবন
পথিকের হেঁটে যাওয়া পথের চড়াই উতরাই বোঝে,
যদিও যেখানে দাঁড়ি এসে দাঁড়াবে
তার আগেই দাঁড়কাকেরা ফ্যাশন হাউসে সমালোচক।

এমন ধারালো ঠোঁটে যদি ময়লা সাফ করা যায়
তবে শব্দেরা বৃষ্টি হতে পারে,
সব অবহেলা মুছে দিতে পারে,
সবুজ হতে পারে মাটিবুক।
যদিও তা হয় না,
বরং বিষ্ময়চিহ্ন আঁকা সাইনবোর্ডের নিচে অকারণ ধর্না,
আওয়াজ ওঠে--
নোংরা করো, নোংরা করো...

জাঁতাভাঙা শব্দের গায়ে প্রশ্নচিহ্ন
বড়শির মতোই বুক ফোঁড়ে ঠোকর
বিভাজিত হয় অ আ ক খ...
তখনও ফ্যাশন হাউসে দাঁড়কাকেরা সমালোচক ।




একটি মন্তব্য পোস্ট করুন