.“...ঝড়ের মুকুট পরে ত্রিশূণ্যে দাঁড়িয়ে আছে, দেখো স্বাধীন দেশের এক পরাধীন কবি,---তার পায়ের তলায় নেই মাটি হাতে কিছু প্রত্ন শষ্য, নাভিমূলে মহাবোধী অরণ্যের বীজ... তাকে একটু মাটি দাও, হে স্বদেশ, হে মানুষ, হে ন্যাস্ত –শাসন!— সামান্য মাটির ছোঁয়া পেলে তারও হাতে ধরা দিত অনন্ত সময়; হেমশষ্যের প্রাচীর ছুঁয়ে জ্বলে উঠত নভোনীল ফুলের মশাল!”~~ কবি ঊর্ধ্বেন্দু দাশ ~০~

মঙ্গলবার, ২৮ জুন, ২০১৬

বালি বর্ষা...তিন/ চিরশ্রী দেবনাথ

সুকুমারী

...................

ছাদে দাঁড়াও সুকুমারী

এক ক্ষনজন্মা বর্ষা আসার কথা  রাতবিরেতে

এই ধরনের নাম বিংশশতকে কেউ রাখে না

সুকুমারীর বাবা রেখেছিলেন

সুকুমারীর বাবা কিন্ত খুব আধুনিক ছিলেন

ঘরের দেয়ালে সাজিয়েছিলেন 

মকবুল ফিদা হুসেন সারি সারি 

সন্ধ্যার বৃষ্টির সময় এইসব বিতর্কেরা

 দুঃখ,  প্রেম, উল্লাস, অভিমান ইত্যাদি

পারস্পরিক সম্পর্ককে চুমু খেতো

তারপর ঘুমিয়ে থাকতো নিপাট বিছানায় 

অথচ মেয়ের নাম  শুধু  সুকুমারী 

সুকুমারীর মা প্রতিবাদ করেছিলো

মা মারা গেছে অকাল জোৎস্নায়

অরণ্যের মতো ঘর পেরোয় আজকাল ধূসর হস্তীযূথ 

সুকুমারীর হাত ধরে দাঁড়িয়ে থাকে পিতা

পিতাপুত্রীর নিঃশ্বাসে ঘরে বয়ে যায় বনজ বাতাস... 

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন