.“...ঝড়ের মুকুট পরে ত্রিশূণ্যে দাঁড়িয়ে আছে, দেখো স্বাধীন দেশের এক পরাধীন কবি,---তার পায়ের তলায় নেই মাটি হাতে কিছু প্রত্ন শষ্য, নাভিমূলে মহাবোধী অরণ্যের বীজ... তাকে একটু মাটি দাও, হে স্বদেশ, হে মানুষ, হে ন্যাস্ত –শাসন!— সামান্য মাটির ছোঁয়া পেলে তারও হাতে ধরা দিত অনন্ত সময়; হেমশষ্যের প্রাচীর ছুঁয়ে জ্বলে উঠত নভোনীল ফুলের মশাল!”~~ কবি ঊর্ধ্বেন্দু দাশ ~০~

বৃহস্পতিবার, ১০ নভেম্বর, ২০১৬

অর্চিষ্মান

।। অনিমেশ দে ।।
 
(C)Image:ছবি














কা মোমবাতিটা জ্বলছে ফাঁকা ঘরে
নেভাতে গিয়ে দেখলাম
একটা মানুষ-
মাথা নুয়ে বসে আগুনটার মাঝখানে
তাকে ঘিরে নীল শিখা।
একটু একটু করে পুড়ে যাচ্ছে
ছাল, মাংস, হাড়;
গড়িয়ে পড়ছে আঠালো রক্ত
ছড়িয়ে পড়ছে ধাঁধালো অর্চি
হঠাৎ শুনতে পাই
অস্ফুট একটা চিৎকার
                       যন্ত্রণা কাতর
আর পাখার ছটফটানি
মোমবাতিটার ঠিক নিচে
একটি আধপোড়া পতঙ্গ
পতঙ্গটিও কি অর্চিষ্মানকে বাঁচাতে গিয়ে
আত্মাহুতি দিল?



একটি মন্তব্য পোস্ট করুন